সুনামগঞ্জ জেলার বিভিন্ন তথ্য

সুনামগঞ্জ জেলাঃ

সুনামগঞ্জ জেলার বিভিন্ন তথ্য জানার আগে জানা প্রয়োজন এটি সিলেট বিভাগের অন্তর্ভুক্ত। ১২ টি থানা নিয়ে গঠিত সুনামগঞ্জ জেলা। সুনামগঞ্জ সদর, তাহিরপুর, ধর্মপাশা, মধ্যনগর, বিশ্বম্ভরপুর, জামালগঞ্জ, দিরাই, শাল্লা,শান্তিগঞ্জ, জগন্নাথপুর, দোয়ারাবাজার ছাতক নিয়ে সুনামঞ্জ জেলা গঠিত। জেলাটি টি পৌরসভা ৮৭ ইউনিয়ন পরিষদ নিয়ে গঠিত।

বাসস্থান পরিবেশঃ

সুনামগঞ্জ জেলার বেশিরভাগ মানুষ হাওর এলাকায় বসবাস করে। এখানে বছরের / মাস মানুষকে পানিবেষ্টিত থাকতে হয়। সাধারণত বর্ষাকাল যেমন জৈষ্ঠ্য, আষাঢ়, শ্রাবণ, ভাদ্র আর্শ্বিন মাসগুলোকে বাসস্থানের চারদিকে পানি থাকে। সময় যাতায়াতে জন্য নৌকা ব্যবহার করতে হয়। বর্ষায় শিশুদের লেখাপড়া অসুস্থ হলে চিকিৎসার জন্য সমস্যায় পড়তে হয়।

জীবন জীবিকাঃ

সুনামগঞ্জের বেশিরভাগ মানুষ কৃষিকাজের উপর নির্ভরশীল। তাছাড়া অনেক মানুষ চাকরি, ব্যবসা, প্রবাসী বা অন্যন্য পেশায় নিয়োজিত রয়েছে। তবে বেশিরভাগ মানুষ বিশেষ করে গ্রামে যারা বসবাস করে তারা শুকনো মৌসুমে ধান চাষ করে। বর্ষাকালে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে।

বিনোদনের ব্যবস্থাঃ

এখানকার মানুষজন খুবই আন্তরিক বিনোদন প্রিয়। শহরের মত বিনোদনের জন্য আধুনিক গানবাজনা বা পার্টির ব্যবস্থা না থাকলে এখানে বিনোদনের ব্যবস্থা কম নয়। সাধারণ বাউলগান, জারিগান, গ্রাম্য মেলা, নৌকাবাইচ, নৌকাভ্রমণ বিনোদনের প্রধান উৎস। তাছাড়া নিজ নিজ ধর্মীয় অনুষ্ঠান যেমন ওয়াজ মাহফিল কীর্তনে অংশগ্রহণ করে মানুষজন মানসিক প্রশান্তি লাভ করে। বর্ষাকালে গ্রামগুলোর ছেলে মেয়েরা ক্যারাম, লুডু, দাবা খেলে সময় কাটায়। তাছাড়া সুনামগঞ্জের মানুষের নিকট ফুটবল খেলা খুবই জনপ্রিয়।

শিক্ষা ব্যবস্থাঃ

সুনামগঞ্জের মানুষের স্বাক্ষরতার হার ৩৫% বর্তমানে শতভাগ বিদ্যুতায়ন, নতুন রাস্তাঘাট হওয়া ব্রীজ নির্মাণের কারণে শিক্ষা ব্যবস্থার অনেক উন্নতি ঘটছে। প্রায় প্রতিটি বাড়িতে অভিভাবকদের মধ্যে সন্তানদের লেখাপড়া করানোর জন্য প্রবনতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

গুরুত্বপূর্ণ ব্যাক্তিত্বঃ

বাবু সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত একজন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ। পিতার নাম দেবেন্দ্রনাথ সেনগুপ্ত, মাতার নাম সুমতিবালা সেনগুপ্ত। উনার রাজনৈতিক জীবনে সততা, নিরপেক্ষতা, দেশপ্রেম, উদারতা, মানবতা সাধারণ মানুষের সাথে আন্তরিকতা সব সময় প্রসংশনীয়। জেলার দিরাই থানায় অন্তর্গত আনোয়ারপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। সুনামগঞ্জ আসন- (দিরাই-শাল্লা) সহ বিভিন্ন আসন থেকে মোট ০৭ (সাত) বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। জন্ম মে ১৯৪৫ খ্রিঃ মৃত্যু ফেব্রুয়ারি ২০১৭।

সুনামগঞ্জের দর্শনীয় স্থানঃ

সুনামগঞ্জ জেলায় প্রচুর দর্শনীয় স্থান রয়েছে তার মধ্যে টাঙ্গুয়ার হাওর, গৌরাঙ্গ জমিদার বাড়ি, টেংরাটিলা গ্যাস ফিল্ড, হাসন রাজার বাড়ি, ডলুয়া স্মৃতিসৌধ অন্যতম। তাছাড়া অনেকে বাউল সম্রাট শাহ আব্দুল করিমের বাড়িতে বেড়াতে যান। হাওরের মধ্যে নৌকা নিয়ে অনেকে ভ্রমনে বের হয়। বিভিন্ন তথ্যমতে প্রাকৃতিক পরিবেশ, নিরবতা, হাওরের সৌন্দর্য সুর্যাস্ত দেখার জন্য সুনামগঞ্জে নৌকা ভ্রমণ দিন দিন খুবই জনপ্রিয় হচ্ছে।


Comment As:

Comment (0)