সুখি থাকার সহজ

সুখি থাকার সহজ উপায় জেনে নিন।

পৃথিবীতে সবাই সুখি থাকার চেষ্টা করে। কিন্তু চাইলেই সুখি হওয়া সম্ভব নয়। এমনকি টাকা পয়সা দিয়েও সুখ পাওয়া যায় না। সুখ সম্পূর্ণ মনের বিষয়। তাহলে কি সুখী থাকার সহজ কোন রাস্তা নেই। আসলেই কি সুখী থাকা কঠিন কোন কিছু ! প্রকৃতপক্ষে সুখি হতে এমন কিছু পন্থা রয়েছে যা কঠিন নয় বরং অনেকটা সহজ। নিচে সুখি থাকার সহজ উপায় সম্পর্কে দেওয়া হয়েছে।

অল্পতে সন্তুষ্ট হওয়াঃ

আপনার মধ্যে যদি অতিরিক্ত চাহিদা থাকে তাহলে কোনদিন সুখী হতে পারবেন না। উদাহারণ হিসেবে বলা যায়, আপনি ছোটবেলা হয়ত ৫০ টাকার খেলনায় যতটা খুশি থাকতেন আজকে হয়তো ৫০ হাজার টাকার মোবাইল ফোনে ততটা খুশি হতে পারেন না। এভাবে পর্যায়ক্রমে আপনার আমার চাহিদা বাড়তে থাকবে কিন্তু চাহিদা শেষ হবে না। আর আমরা সুখিও হতে পারব না। তাই সুখী থাকার সব চাইতে সহজ উপায় হল অল্পতে সন্তুষ্ট থাকা

অন্যের খুশিতে সুখী হওয়াঃ

সুখী থাকার আরেকটি সহজ উপায় হচ্ছে অন্যের খুশিতে সুখী হওয়া। আজকাল সময়টা এমন এসেছে আমরা অন্যের খুশিতে আনন্দিত হওয়া দূরের বিষয় বরং আমরা হিংসা করা শুরু করে দেই। অন্যের ভালো খবরে আমাদের মন আরো খারাপ হয়ে যায়। এই রকম মনমানসিকতা আমাদের ত্যাগ করা উচিত। তাহলে আমরা সুখি হতে পারব। তাছাড়া অন্যের খুশিতে সুখী হলে দেখবেন তাদের সাথে আপনার সু-সম্পর্ক সৃষ্টি হয়েছে। তাই আপনি যদি অন্যের খুশিতে সুখী হতে পারেন তাহলে সুখী থাকা নিয়ে আপনাকে আর চিন্তা করতে হবে না।

আরওঃ যে সকল অভ্যাসের কারণে আপনার আত্মবিশ্বাস কমে  যায়।

অতিরিক্ত চিন্তা না করাঃ

আমাদের মস্তিস্ক এমনভাবে তৈরি যা অহেতুক চিন্তা মাথায় নিয়ে আসে। ফলে অপ্রয়োজনীয় নানা ধরনের চিন্তা করতে থাকি। যা সুখী হতে প্রধান অন্তরায়। আমাদের শরীর মনের জন্য বিরাট ক্ষতিকর। তাছাড়া আপনি যদি কোন কাজ না করে অহেতুক চিন্ত করেন তাহলে লাভ কিছুই হবে না বরং মানসিক হীনমন্যতা বাড়াবে তাই সুখী হতে গেলে অবশ্যই অতিরিক্ত চিন্তা করা ত্যাগ করা উচিত।

পরনিন্দা না করাঃ

আপনি যদি পরনিন্দা বা পরচর্চা বন্ধ না করেন তাহলে অসুখি হতে আপনাকে আর চিন্তা করতে হবে না। পরনিন্দাকারী সব সময় অসুখি থাকে। যেমন আপনি হয়তো কারো খারাপ দিকগুলো অন্যের কাছে তুলে ধরছেন্। সে সময় সেই ব্যাক্তি উপস্থিত হল, তাহলে আপনার মনের অবস্থা অজান্তেই খারাপ হয়ে যাবে। যার কাছে পরনিন্দা করছেন তিনিও আপনার সম্পর্কে খারাপ ধারণা পোষন করবেন। তাছাড়া পরনিন্দা বা পরচর্চা করতে ধর্মীয় বিধানে নিষেধ করা হয়েছে। তাই সুখী হতে গেলে অবশ্যই পরনিন্দা বা পরচর্চা করা ত্যাগ করতে হবে।

পরোপকারী হওয়াঃ

আমরা সমাজ নিয়ে সবাই মিলে মিশে বসবাস করি সবাই যদি সুখে থাকে তাহলে আমরাও সুখি থাকব। যারা সব সময় নিজের কথা চিন্তা করে তারা কখনও সুখি হতে পারেন না। অন্যের উপকার করলে এক ধরনের মানসিক শান্তি পাওয়া যায়। শুধুমাত্র মানসিক শান্তি লাভের জন্য পৃথিবীর অনেক ধনী ব্যাক্তিরা দান করার জন্য বড় বড় দাতব্য সংস্থা গড়ে তুলেছেন। তাই মনের প্রশান্তি লাভের জন্য আপনিও পরোপকারী হউন সেটা হতে পারে অর্থ, সু-পরামর্শ কিংবা মুখের মিষ্টি ভাষা দিয়ে

সহজে সুখী থাকার জন্য অল্পতে সন্তুষ্ট হওয়া, অন্যের খুশিতে সুখি হওয়া, অতিরিক্ত চিন্তা না করা, পরনিন্দা না করা, পরোপকারী হওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাছাড়া সুখী থাকার জন্য আরেকটি বিষয় জরুরী তা হল সুখি থাকার চেষ্টা করা। ভাবছেন সুখি হতে কে না চায়। তাহলে সুখি থাকার চেষ্টা করা জরুরী কেন !

প্রকৃতপক্ষে আপনি যদি ভালোভাবে লক্ষ্য করেন তাহলে দেখবেন, আমাদের সমাজে এমন অনেক লোক রয়েছে তারা সব সময় হাসিখুশি থাকে। তারা দুঃখে হাসে শোকেও হাসে। তাদের জীবনে বারবার সুখ আসে। আবার এমন অনেক লোক রয়েছে অনেক আনন্দের বিষয়েও হাসতে পারেন না।

যারা সব সময় অসুখি ভাব নিয়ে থাকে। তারা এভাবে অসুখি বিষন্ন ভাব নিয়ে সারা জীবন কাটিয়ে দেয়। তারা কখনও সুখী হতে পারেন না তাই পরিস্থিতি যেমন হউক না কেন সব সময় হাসিখুশি থাকতে হবে। দেখবেন আপনার জীবনে বারবার আনন্দ আসবে, মনের সুখ প্রশান্তিতে ভরপুর থাকবে।

আরওঃ জীবনে সফল হতে চাইলে ০৮ বিষয় কখনও কারো কাছে শেয়ার করা উচিত নয়।


Comment As:

Comment (0)