পাখি বসবাসের উপযোগী

পাখি বসবাসের উপযোগী সুন্দর পৃথিবী চাই।

আমাদের চারপাশের প্রকৃতি পরিবেশ সুন্দর রাখার জন্য পাখির ভূমিকা বলে শেষ করা যাবে না। পাখির কলকাকলীতে সত্যি মন ভরে যায়। একটি সুন্দর পৃথিবী পাখি ছাড়া কল্পনা করা কঠিন। নিরব নিস্তব্ধ প্রকৃতির মধ্যে পাখির কোলাহলে কেটে যায় মনের বিষন্নতা।তাই আমরা সবাই পাখি বসবাসের উপযোগী সুন্দর পৃথিবী চাই।

এক সময় এদেশের গ্রাম, শহর, বনজঙ্গল হাওরাঞ্চলে প্রচুর দেশি বিদেশি ছিল। তাছাড়া শীতের সময় সূদুর পথ পাড়ি দিয়ে এদেশে প্রচুর অতিথি পাখি আসত। শীতের সকালে দেশি পাখিদের কিচিরমিচির শব্দ আর কুয়াশা কাটিয়ে অতিথি পাখিদের গমনাগমন দেখতে খুবই মনোমুগ্ধকর লাগে।

দেশি পাখিদের মধ্যে ফিঙ্গে, দোয়েল ঘুঘু, শালিক, চড়ুই কাঠঠোকরা, সাদা বক, মাছরাঙা, বালি হাসঁ, কোকিল জল তিতির, চিল, শকুন,ঈগল, দেশি ময়ূর, কালিম, জল মোরগ ছিল খুবই পরিচিত পাখি। অথচ ২০২৩ সালে এসে বর্তমান প্রজন্ম পাখিগুলো দেখা দূরের বিষয় নামগুলো পর্যন্ত জানে না।তাছাড়া অতিথি পাখির মধ্যে মানিক জোড়,চখাচখি,রাজহাঁস, বেলে হাঁসসহ নাম জানা অসংখ্যা পাখি আসত।

অনেক নতুন প্রজাতির পাখি দেখা যেত। এখনও আমাদের দেশে বাইক্কাবিল, টাঙ্গুয়ার হাওর, হাকালুকি হাওরের পাখি আসে তবে সেই সূদুর অতিথের মত এত পাখি আসে না। তাছাড়া ছোটবড় হাওরে অতিথি পাখি আসা একেবারেই কমে গেছে।নানা কারণে আমাদের দেশি পাখিগুলোও প্রায় বিলুপ্ত হতে চলেছে। প্রচুর জীবনীশক্তি কঠিন পরিস্থিতিতে বাস করতে থাকা কাকও বিলুপ্তপ্রায়।

যেদিন পৃথিবীর শেষ গাছটি কেটে ফেলা হবে,
শেষ মাছটি ধরে ফেলা হবে, শেষ নদীর জলও বিষাক্ত করে ফেলা হবে, কেবল সেদিনই মানুষ বুঝবে, টাকা খেয়ে বেঁচে থাকা যায় না-তাওহীদ বিশ্বাস। উক্তিটি মানুষের জীবনে প্রকৃতির প্রয়োজনীতার বিষয়ে খুবই তাৎপর্যপূর্ণ।

দেশী-বিদেশি পাখিদের সংখ্যা কমে যাওয়ার মূল কারণ পাখিদের আবাসস্থল বনাঞ্চল কেটে ফেলা, পাখি নিধন অপরিকল্পিত নগরায়ন।তাছাড়া কিছু চোরা শিকারীদের নিধনের কারণেও পাখি মারা যাচ্ছে।

মানুষ এবং প্রকৃতির মধ্যে গভীর সম্পর্ক রয়েছে। এই পৃথিবীতে যদি গাছপালা, বনাঞ্চল না থাকে তাহলে বন্য পশু পাখি মানুষ বেঁচে থাকতে পারবে না। সেজন্য এই পৃথিবীতে মানুষ পাখিদের আবাসস্থল তৈরি করতে হলে প্রচুর বনাঞ্চল তৈরি করতে হবে।

পাখি বসবাসের উপযোগী সুন্দর পৃথিবীর জন্য জনসচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। তাছাড়া বন্য প্রাণী (সংরক্ষণ নিরাপত্তা) আইন ২০১২ যথাযথ প্রয়োগ করতে হবে। আমাদের সবাইকে দেশি-বিদেশি পাখিসসহ সকল বন্যপ্রাণী অভয়াশ্রমে সংরক্ষণে কাজ করতে হবে।


Comment As:

Comment (0)