জীবনে সফল হতে চাইলে

জীবনে সফল হতে চাইলে ০৮ টি বিষয় কাউকে বলবেন না।

আপনি কি জীবনে সফল হতে চান বা বড় কিছু করতে চান? তাহলে আপনাকে কিছু বিষয় সবার নিকট থেকে অবশ্যই গোপন রাখতে হবে। স্বাভাবিকভাবে মনে হতে পারে গোপন করার সাথে সফলতার সম্পর্ক কি? প্রকৃতপক্ষে কিছু গোপন করার সাথে সফল হওয়ার মনস্তাত্ত্বিক বিষয় বৈজ্ঞানিক সম্পর্ক জড়িত। তাই আপনি যদি কিছু বিষয় গোপন না রাখেন তাহলে আপনি নিশ্চিতরূপে ব্যর্থ হতে পারেন। আজকে জীবনে সফল হতে চাইলে যে ০৮ টি বিষয় কাউকে বলা উচিত নয় সে সম্পর্কে আলোচনা করব।

কখনো কারো সম্পর্কে খারাপ কিছু বলবেন নাঃ

কখনো কারো সম্পর্কে খারাপ কিছু বলা উচিত নয়। মানুষের সম্পর্কে খারাপ কথা বললে তা হয়তো আপনাকে সাময়িক স্বস্তি দিবে। কিন্তু যাদের নিকট আপনি বলছেন তারা নিশ্চিতভাবে বিষয়টির উপর ভিত্তি করে আপনাকে বিচার করে। এই জিনিসগুলির উপর ভিত্তি করে তারা আপনার নৈতিকতাও মূল্যায়ন করবে।

তাছাড়া যাদের নিকট আপনি খারাপ কথা বলছেন তারা মনে করবে আপনি হয়তো তৃতীয় লোকের কাছে তাদের সম্পর্কেও খারাপ কথা বলবেন। যারা অন্যদের সম্পর্কে খারাপ কথা বলে তারা সাধারণত কম বিশ্বস্ত হয় বলে ধারণা করা হয় তাই আপনি ভিতরে ভিতরে তাদের কাছে গ্রহণযোগ্যতা হারাবেন।

আপনার সাফল্যের গোপন কথা কাউকে বলবেন নাঃ

আপনার সাফল্যের গোপন কথা কখনই কারো নিকট শেয়ার করবেন না। কারণ আপনি কারো নিকট আপনার সাফল্যের কথা বলেন তাহলে তারা নিশ্চিতভাবে আপনাকে অনুসরণ করবে। যদি তারা অসফল হয়, তাহলে মনে করবে আপনি তাদের সঠিক নির্দেশনা দেননি অথবা তাদের সঠিক পথ বলেননি।

তাদের অসফলতার জন্য তারা আপনাকে দায়ী করবে। আপনাকে সত্য গোপন করার জন্য অভিযুক্ত করবে। অতএব, আপনার সাফল্যের রহস্য যদি আপনার কাছে থাকে তবে তা কারও কাছে প্রকাশ করবেন না।

আপনার অতীতের ভুল বা অনুশোচনা শেয়ার করবেন নাঃ

জীবনে সফল হতে চাইলে আপনার অতীতের ভুল বা অনুশোচনা সম্পর্কে কাউকে জানানো উচিত নয়। কাউকে কখনো বলবেন না আপনি অতীতে কার সাথে শত্রুতা করেছেন, বিরোধ ছিল, অপছন্দ করেন বা আপনি এখনও কাদের ঘৃণা করেন। কারণ যে কোন সময় পরিস্থিতির পরিবর্তন হলে তারা এসব তথ্য আপনাকে দুর্বল করার জন্য ব্যবহার করতে পারে।

যে জিনিস চলে গেছে বা হারিয়ে গেছে তা নিয়েও আপসোস করা ঠিক নয়। কারণ অধিক অনুশোচনা মানসিক এবং শারীরিক স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। তাই অতীতের ভুল বা অনুশোচনা কারো কাছে শেয়ার করবেন না। আপনার অতীতের ভুলগুলি গোপন রাখুন যেন কেউ সেগুলি না জানে।

আপনার অভ্যাস এবং আপনি ব্যক্তিগতভাবে কি করেনঃ

আপনার অভ্যাস এবং আপনি ব্যক্তিগতভাবে কি করেন তা কখনো শেয়ার করবেন না। আপনার ব্যক্তিগত খারাপ অভ্যাস থাকতে পারে। অভ্যাসগুলো হতে পারে আপনি শীতের দিনে মাসে একবার স্নান করেন বা সপ্তাহে একদিন দাঁত ব্রাশ করেন। কিন্তু এসব খারাপ অভ্যাস কখনই সকলের সাথে শেয়ার করা উচিত নয়।

কারণ আপনার ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁস হলে অন্যেরা খুব সহজেই আপনার দুর্বল দিক চিহ্নিত করতে পারবে।  তাছাড়া খারাপ অভ্যাস অন্যদের নিকট প্রকাশ করলে আপনার আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি হতে পারে। তবে আপনি যদি খারাপ অভ্যাসগুলো ত্যাগ করতে চান তাহলে আপনার অতি বিশ্বস্ত বন্ধুর কাছ থেকে খুবই ভেবেচিন্তে পরামর্শ চাইতে পারেন।

আপনার ঘরোয়া বিবাদ এবং মনোমালিন্যঃ

আপনার নিজের ঘরোয়া বিবাদ বা মনোমালিন্য নিয়ে কারো সাথে কখনোই আলাপ করা উচিত নয়। ঘরোয়া বিবাদ সাধারণত অতি সহজেই মিটে যায়। অনেকে নিজের মনের কষ্ট হালকা করা বা মানসিক শান্তি লাভের জন্য নিজের ঘরোয়া বিবাদ সবার সাথে শেয়ার করেন। যা একেবারেই ঠিক নয়।

কারণ তারা আপনার ঘরোয়া বিবাদের সমাধান দিতে পারবে না। উল্টো আপনার পরিবারের বিবাদের কথা শেযার করে সবাইকে যেমন ছোট বানালেন সাথে সাথে আপনি নিজেও তাদের কাছে মূল্যহীন হয়ে পড়বেন।

তবে একান্ত প্রয়োজনে যদি ঘরোয়া সমস্যা সম্পর্কে কাউকে বলার প্রয়োজন হয়, তাহলে এমন কাউকে বলুন যিনি আপনাকে সত্যিকার অর্থে সাহায্য করবেন। আপনার ঘরোয়া বিবাদ বা মনোমালিন্যর বিষয়টি সমাধান করতে পারবেন।

আপনার বেতন বা ব্যাংক ব্যালেন্স তথ্যঃ

জীবনে সফল হতে চাইলে আপনার বেতন এবং ব্যাংক ব্যালেন্স গোপন রাখুন। বিশেষ করে আপনার আত্মকেন্দ্রিক বন্ধুদের কাছে এটি গোপন রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এই ধরনের বন্ধুরা আপনার আর্থিক অবস্থার সুযোগ নেওয়ার চেষ্টা করতে পারে।

তারা এসব তথ্য জানলে তাদের আর্থিক প্রয়োজনে আপনি না করতে পারবেন না। যেহেতু তারা আপনার আর্থিক বিষয় সম্পর্কে জানে। যদি তাদের আপনি সহযোগিতা না করেন তাহলে তারা আপনাকে স্বার্থপর মনে করবে।

তাছাড়া আপনার অতিরিক্ত সম্পদ থাকলে আপনার কিছু বন্ধু দূরে চলে যেতে পারে। অন্যদিকে আপনার সম্পদ না থাকলে বন্ধুরা এমনকি নিকট আত্মীয় স্বজনও আপনাকে ত্যাগ করতে পারে। তাই আপনার বেতন বা ব্যাংক ব্যালেন্স গোপন রাখা উচিত।

আপনার ভাল কাজ এবং অর্জনঃ

আপনার কোনো অর্জন বা কোনো ভালো কাজ থাকলে তা একদিন না একদিন সবাই জানতে পারবে। সুতরাং আপনি যদি ভাল কাজ করে থাকেন, তবে নিজে এটি প্রচার করবেন না এবং নিজে গিয়ে লোকেদেরকে বলতে যাবেন না।

এই রকম প্রচারের কারণে লোকেরা আপনি বড়াই করছেন বলে মনে করতে পারে। ফলে স্বাভাবিক ভাবেই তারা আপনার সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণা পোষণ করবে। তাই আপনার ভাল কাজ এবং অর্জন কারো সাথে শেয়ার করা উচিত নয়।

আপনার লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্যঃ

আপনি যদি জীবন সফল হতে চান তাহলে নিজের লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য কাউকে বলা উচিত নয়। সত্যি বলতে কি আপনি যদি নিজের লক্ষ্য উদ্দেশ্য সম্পর্কে বলেন তাহলে তাতে সফল হওয়ার সম্ভাবনা ৮০কমে যাবে। এর পিছনে একটি প্রমাণিত বিজ্ঞান রয়েছে।

আপনি যদি আপনার লক্ষ্য সম্পর্কে বন্ধুদের বা লোকদের জানান, তখন আপনার বন্ধুরা আপনার প্রশংসা করবে, ক্রেডিট দিবে, তখন মস্তিষ্ক একধরনের এন্ডোরফিন নিঃসরণ করে ফলে আপনার লক্ষ্য অর্জন করেছেন মনে হতে পারে। তাই আপনার মনে লক্ষ্য অর্জনের ইচ্ছা কমে যাবে।

সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ হলো আপনি যদি লক্ষ্যে পূরণে ব্যর্থ হন তাহলে মানুষের সামনে বিব্রত হবেন। তারা মনে করবে আপনি শুধু বলে বেড়ান এবং কিছুই করেন না। তাই যদি আপনার জীবনে বড় পরিকল্পনা বা কিছু উচ্চাভিলাষী লক্ষ্য থাকে, তবে সেগুলি অর্জন না করা পর্যন্ত কারো সাথে শেয়ার করবেন না।


Comment As:

Comment (0)