ঝলমলে চুল

চুল পড়া বন্ধ করে চুলকে ঝলমলে রাখতে ১০ টি সেরা টিপস।

অনেকে দামি শ্যাম্পু ব্যবহার করেও চুলকে ঝলমলে স্বাস্থ্যকর রাখতে পারছেন না। চুলকে ঝলমলে, স্বাস্থ্যকর রাখতে চুল পড়া বন্ধ করতে আমরা প্রায় সময়ই টিভিতে দেখা বিজ্ঞাপন অনুসরণ করি। তবুও সুন্দর চুলের জন্য চুল পড়া বন্ধ করতে কাঙ্ক্ষিত ফলাফল পাওয়া যায় না। আজকে আপনার চুল পড়া বন্ধ করে চুলকে ঝলমলে স্বাস্থ্যকর রাখতে রইল ১০ টি সেরা টিপস।

০১। চকচকে নরম চুলের জন্যঃ

আপনার চুলকে ঝলমলে স্বাস্থ্যকর রাখতে প্রতিদিন কাপ কন্ডিশনার এবং - টেবিল চামচ মধুর মিশ্রণ তৈরি করুন। এই মিশ্রণটি আপনার ভেজা চুলে সমানভাবে লাগান। ৩০ মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। এটি আপনার চুলের কিউটিকল বন্ধ করে দেবে এবং আপনার চুলকে সেই ঝলমলে স্বাস্থ্যকর করে তুলবে।

০২। গরম পানি এড়িয়ে চলুনঃ

অনেকে চুলকে ঝলমলে স্বাস্থ্যকর রাখা বা চুল পড়া বন্ধ করার জন্য গরম পানি ব্যবহার করেন। যা চুলের স্বাস্থ্যর জন্য ভালো নয়। কারণ গরম পানি চুলকে শুষ্ক ভঙ্কুর করে তুলে। তাই চুলে শরীরের তাপমাত্রার চাইতে সামান্য বেশি গরম পানি ব্যবহার করুন। এটা আপনার চুলের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো হবে।

০৩। চুলে বেকিং সোডার ব্যবহারঃ

চুলকে স্বাস্থ্যকর রাখার জন্য সেরা টিপস হল বেকিং সোডার ব্যবহার। বেকিং সোডা এবং কিছু জল দিয়ে
টেবিল চামচ মিশ্রণ তৈরি করুন। শ্যাম্পু করার পর এই দ্রবণ দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। তবে ভালোভাবে চুল ধুয়ার পূর্বে কমপক্ষে মিনিটের অপেক্ষা করুন এই থেরাপি আপনার চুল থেকে অতিরিক্ত শ্যাম্পু এবং স্টাইলিং পণ্য অপসারণ করতে সহায়তা করবে।

০৪। ঘন ঘন আপনার চুল ধৌত করবেন নাঃ

অনেকে মনে করেন চুলকে স্বাস্থ্যকর রাখার জন্য বেশি বেশি ধুয়া শ্যাম্পু করা উচিত যা সঠিক নয়। প্রাকৃতিক চুলের তেলের সঠিক নিয়ন্ত্রণের জন্য প্রতি - দিন অন্তর আপনার চুল ধুয়ে ফেলুন। চুল কম ঘন ঘন ধোয়া চুলের স্বাভাবিকত্ব এবং দীপ্তি ফিরে পেতে সাহায্য করবে।

০৫। ঘরোয়া কন্ডিশনার তৈরি করে ব্যবহার করুনঃ

চুলের স্বাস্থ্য ঠিক রাখার জন্য ঘরোয়া কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। প্রোটিন প্যাকড কন্ডিশনারের জন্য, ডিম এবং দই মিশিয়ে আপনার মাথার ত্বকে ভালোভাবে ঘষুন। /১০ মিনিট অপেক্ষা করে তারপর সম্পূর্ণরূপে ধুয়ে ফেলুন।

০৬। শক্তিশালী চুলের জন্যঃ

শুষ্ক এবং ক্ষতিগ্রস্ত চুলের চিকিৎসার জন্য বাদাম তেল ব্যবহার করলে খুব উপকার পাওয়া যায়। একটি পাত্রে কিছু বাদাম তেল ঢেলে ৪০ সেকেন্ড গরম করে সমানভাবে আপনার চুলে ব্যবহার করুন। তারপর ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। ঠান্ডা জল ব্যবহার দিয়ে শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার ব্যবহার করে ধুয়ে ফেলুন।

০৭। রোদে ক্ষতিগ্রস্ত চুল চিকিৎসাঃ

আধা কাপ মধু, - টেবিল চামচ অলিভ অয়েল এবং - টেবিল চামচ ডিমের কুসুমের মিশ্রণ তৈরি করুন। এই মিশ্রণটি আপনার চুলে ২০ মিনিটের জন্য প্রয়োগ করুন এবং তারপরে গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই চিকিৎসা কেরাটিন প্রোটিন পুনরায় পূরণ করতে সাহায্য

০৮। ভেজা চুল ব্রাশ করবেন নাঃ

ভেজা চুল তিনগুণ দুর্বল এবং এইভাবে ভেঙে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তাই প্রথমে তোয়ালে দিয়ে আপনার চুল শুকিয়ে নিন এবং তারপরে একটি চওড়া দাঁতের চিরুনিটি অ্যাপে খুলে আলতো করে বিচ্ছিন্ন করুন।

০৯। আপনার চুল বাতাসে শুকিয়ে দিনঃ

ব্লো ড্রায়ার বা হট রোলার ব্যবহার না করে আপনার চুলকে নিজেই শুকাতে দিন। কৃত্রিম পদ্ধতিতে শুকানোর কারণে আপনার চুল আরও ভঙ্গুর এবং শুষ্ক হয়ে উঠবে। যদি আপনার চুলে বাতাস শুকাতে দেওয়ার সময় না থাকে, তবে অল্প পরিমাণে ব্লো-ড্রায়ার ব্যবহার করুন এবং নিশ্চিত করুন।

১০। ভাল খাদ্য গ্রহণ করাঃ

প্রচুর পানি পান করুন এবং কাঁচা ফল সবজির স্বাস্থ্যকর খাবার খান। চুলের যত্নে সবচেয়ে কার্যকরী ঘরোয়া চিকিৎসা হল স্বাস্থ্যকর খাবার। আপনি যা খাচ্ছেন তা আপনার শরীরের উপর প্রভাব পড়বে। তাই শুধু চুল ভালো রাখা চুল পড়া বন্ধ করা নয় শারিরীক স্বাস্থ্য ভালো রাখতেও পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ গুরুত্বপূর্ণ।


Comment As:

Comment (0)