ক্রেতা বিক্রেতা

বিক্রেতারা কি আপনার নিকট পণ্য বিক্রয় করতে বাধ্য!

আপনি সুপার সপে গেলেন পণ্য ক্রয় করার জন্য। কিন্তু বিক্রেতারা বলে দিল তারা আপনার নিকট পণ্য বিক্রয় করতে ইচ্ছুক নয়। তাহলে আপনি কি করবেন? আপনি হয়তো বলবেন পণ্য বিক্রয় করবেন না কেন? আপনার সমস্যা কি? অনেকে হয়তো ঝগড়া শুরু করে দিবেন। আবার অনেকে কেনাকাটা না করে অন্য স্টোরে চলে যাবেন।

এমনটা সাধারণত কখনো ঘটে না। কারণ বিক্রেতারা সব সময় ক্রেতাদের সম্মান প্রদর্শন করে এবং তারা পণ্য বিক্রয় করার যথেষ্ট চেষ্টা করে থাকেন। কিন্তু এমনটা যদি ঘটে! আপনি তাহলে কি করবেন! বিক্রেতারা কি প্রকৃতপক্ষে আপনার নিকট পণ্য বিক্রি করতে বাধ্য কিনা। আপনার নিকট পণ্যের বিক্রয় করার বিষয়ে বাংলাদেশের আইন কি বলে? সম্পর্কে আইনে কি কিছু বলা হয়েছে? সচেতন নাগরিক হিসেবে ধরনের আইন সম্পর্কে জানা উচিত।

বিক্রেতারা কি আপনার নিকট বিক্রয় করার জন্য বাধ্য! এই প্রশ্নের উত্তর হচ্ছে বাংলাদেশের আইন অনুসারে বিক্রেতারা আপনার নিকট পণ্য বিক্রয় করতে বাধ্য। বিক্রেতারা পণ্য বিক্রি না করলে আইনে শাস্তির বিধান রয়েছে। ক্রেতাদের অধিকার সংরক্ষণের জন্য "ভোক্তা -অধিকার সংরক্ষণ আইনের ৪৫ ধারায় সম্পর্কে বর্ণনা করা হয়েছে। ধারা অনুসারে কোন বিক্রেতা প্রদত্ত মূল্যের বিনিময়ে প্রতিশ্রুত পণ্য সরবরাহ করতে বা সেবা যথাযথভাবে প্রদান করতে বাধ্য।

যদি মূল্য পরিশোধের পরও তারা আপনার নিকট পণ্য সরবরাহ না করে বা যথাযথ সেবা প্রদান না করে তাহলে শাস্তিযোগ্য অপরাধ হবে। উক্ত অপরাধের জন্য যে কোন মেয়াদের কারাদণ্ড যার মেয়াদ সর্বোচ্চ বছরের বেশি হবে না অথবা অর্থদন্ড সর্বোচ্চ ৫০,০০০ টাকা হতে পারে। কর্তৃপক্ষ প্রয়োজন মনে করলে জেল জরিমানা উভয়দন্ড প্রদান করতে পারে।

বিক্রেতারা কি আপনার নিকট পণ্য বিক্রয় করতে বাধ্য! উক্ত বিষয়ে ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ আইনে কি বলা হয়েছে জানতে পারলেন। এই আইন অনুসারে ভোক্তাদের অধিকার সংরক্ষণে বিশেষ কিছু ধারা রয়েছে। প্রকৃতপক্ষে ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ আইনের উদ্দেশ্য হল ক্রেতাদের স্বার্থ রক্ষা করা।


Comment As:

Comment (0)