অস্থিতিশীল সুদান চলছে ক্ষমতা দখলের লড়াই।

গত কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন কারণে অস্থিতিশীল বিশ্ব। তারপরে করোনা পরবর্তী সময়ে শুরু হয়েছে রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ। যার ফলে বিশ্বমন্দা, অর্থনৈতিক মুদ্রাস্ফিতি, অস্তিরতা শুরু হয়েছে। নতুন যোগ হয়েছে সুদানে সেনাবাহিনীতে আধা সামরিক বাহিনীর মধ্যে লড়াই। ২০১৯ সালে একনায়ক ওমর আল বশিরকে ক্ষমতা থেকে হটিয়ে সুদানের সেনাবাহিনী ক্ষমতা দখল করে। তারপর থেকেই সুদানের জনগণ গণতন্ত্রের জন্য আন্দোলন করে আসছে। তখন থেকেই সুদানে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আবু ফাত্তাহ আল বুরহান আর এসএফ প্রধান মো হামদান নাগালো হেমিত্রি দাগালোই দেশ পরিচালনা করছিলেন। কিন্তু বর্তমানে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সেনাবাহিনী আরএসএফ এর মধ্যে মতবিরোধ দেখা দেয়। যার প্রেক্ষিতে উভয় পক্ষের মধ্যে লড়াই শুরু হয়। কয়েক দিন ধরেই প্রেসিডেন্টর বাসভবন,রাষ্টীয় টেলিভিশন,সেনা সদর দপ্তর বিমানবন্দরের দখল নিয়ে উভয়পক্ষে ব্যপক সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে প্রায় ২০০ জনের মত মানুষ মারা গেছে। সুদানের রাজধানী ছেড়ে হাজার হাজার মানুষ অন্যত্র আশ্রয় নিচ্ছে। আধাসামরিক বাহিনী আরএসএফকে পরাজিত করার জন্য সেনাবাহিনী সাথে যোগ দিয়েছে বিমানবাহিনী। উভয় পক্ষই একে অপরকে ধ্বংস না করা পর্যন্ত যুদ্ধ বন্ধ করবে না বলে জানায়। এমতাবস্থায় সুদানের সাধারণ জনগণ খুবই আতংকের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। এমতাবস্থায় প্রতিবেশী বিভিন্ন দেশ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জাতিসংঘ যুদ্ধ বন্ধ করে উভয় পক্ষকে সংযত থাকার আহ্বান জানান।


Comment As:

Comment (0)